ইসলামী সূত্র

  • features

    1. home

    2. article

    3. সূরা রা’দ চার নং আয়াতের অনুবাদসহ সংক্ষিপ্ত ব্যাখ্যা উপস্থাপন

    সূরা রা’দ চার নং আয়াতের অনুবাদসহ সংক্ষিপ্ত ব্যাখ্যা উপস্থাপন

    সূরা রা’দ চার নং আয়াতের অনুবাদসহ সংক্ষিপ্ত ব্যাখ্যা উপস্থাপন
    Rate this post

    চার নং আয়াতে বলা হয়েছে, ” ভূমিতে বিভিন্ন শস্যক্ষেত্র রয়েছে যা একটি অপরটির সাথে সংলগ্ন , এতে রয়েছে আঙ্গুরের বাগান, শস্য ও খেজুর বৃক্ষ । একই বা ভিন্ন জাতের ফলের জন্য একই পানি দেওয়া হয়। আমি ফল অনুপাতে কোন টাকে কোনটার উপর শ্রেষ্ঠত্ব দিয়ে থাকি। অবশ্যই বোধ শক্তিসম্পন্ন সম্র্কদায়ের জন্য এতে নিদর্শন রয়েছে। ”

    এর আগের কয়েকটি আয়াতে মহান সৃষ্টিকর্তা আল্লাহর ক্ষমতা, আকাশ, ভূপৃষ্ঠ, পর্বতমালা এবং সাগর, মহাসাগর সৃষ্টির নানা দিক বর্ণনার পর এই আয়াতে ভূমিতে উৎপন্ন শস্য ও ফল-মূল সম্পর্কে বর্ণনা দেওয়া হয়েছে। এখানে মানব জাতির দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলা হয়েছে, ভূমিতে উৎপন্ন শস্য ও ফলমূল সব এক জাতের হয় না বরং তা ভিন্ন ভিন্ন জাতের এবং বৈচিত্রময় হলেও তা একই ভূমি থেকে একই পানি সিঞ্চনের মাধ্যমে উৎপন্ন হয়। একটি বাগানে যে শুধু একই ধরণের ফল জন্মায় তা কিন্তু নয় বরং একটি বাগানে মাটি ও রস একই হলেও দশ ধরনের ফল জন্মাতে পারে। এবং প্রত্যেক ফলের স্বাদ ও গন্ধও আলাদা হয়ে থাকে। এসবই মানুষের প্রতি সৃষ্টিকর্তা মহান আল্লাহর অনুগ্রহ এবং তাঁর অসীম ক্ষমতা ও কুদরতেরই প্রমাণ।

    সত্যিই সৃস্টি জগতে বিদ্যমান প্রতিটি বিষয়েই চিন্তাশীল মানুষের জন্য খোরাক রয়েছে। এজন্য পবিত্র কোরআনে জ্ঞান-বিজ্ঞান ও চিন্তা-গবেষণার প্রতি খুব বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। মানুষ যদি সৃষ্টি জগতের অতি ক্ষুদ্র বিষয়টিও গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করে তাহলে তাতে সৃষ্টিকর্তার অস্তিত্ব ও তাঁর অসীম ক্ষমতার প্রমাণ পাবে।
    কাজেই যে সব মানুষ জগতে বিরাজমান আল্লাহর অফুরন্ত নেয়ামত শুধু ভোগ করছে কিন্তু তার মেধা, মনন ও বিবেককে কাজে লাগাচ্ছে না পবিত্র কোরআন তাদেরকে তিরস্কার করেছে।