ইসলামী সূত্র

  • features

    1. home

    2. book

    3. সূরা বাকারাহ; আয়াত ১০৮-১১২ (পর্ব ৩২)

    সূরা বাকারাহ; আয়াত ১০৮-১১২ (পর্ব ৩২)

    সূরা বাকারাহ; আয়াত ১০৮-১১২ (পর্ব ৩২)
    Rate this post
    description book specs comment

    সূরা বাকারাহ”র ১০৮ নম্বর আয়াতে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন বলেছেন-
    أَمْ تُرِيدُونَ أَنْ تَسْأَلُوا رَسُولَكُمْ كَمَا سُئِلَ مُوسَى مِنْ قَبْلُ وَمَنْ يَتَبَدَّلِ الْكُفْرَ بِالْإِيمَانِ فَقَدْ ضَلَّ سَوَاءَ السَّبِيلِ (108

    “তোমরা কি তোমাদের রাসূলের নিকট সে ধরনের প্রশ্ন বা আবদার করতে চাও যেরকম পূর্বে মূসাকে করা হয়েছিল? জেনে রাখ যে, এ ধরনের বাহানা এনে বিশ্বাসের পরিবর্তে যে অবিশ্বাসকে গ্রহণ করে, সে নিশ্চিতভাবে সরল পথ হারায়৷” (২:১০৮)
    কিছু দুর্বল ঈমানের অধিকারী লোক অদ্ভুত ধরনের মোজেযা বা অলৌকিক শক্তি দেখানোর জন্য নবীজীর কাছে আবদার করত, যেমন বলত আমাদের জন্য আল্লাহর কাছ থেকে একটি চিঠি নিয়ে আসুন। তাদের এ ধরনের দাবি ছিল হযরত মূসা(আ.)এর প্রতি বনী ইসরাইলের দাবির মত ৷ বনী ইসরাইল বলেছিল, আমরা আল্লাহকে দেখতে চাই, আপনি আল্লাহকে দেখানোর বন্দোবস্ত করুন, তাকে আমরা স্বচক্ষে দেখে তবেই ঈমান আনবো। মূলত: মোজেযার উদ্দেশ্য হলো নবুয়্যত প্রমাণিত করা। প্রত্যেকের ইচ্ছা পূরণ করা নবীর কাজ নয়। যেমন একজন প্রকৌশলী তার দাবির প্রমাণ হিসাবে কয়েকটি দৃষ্টান্ত পেশ করে। কিন্তু যে কেউ তাকে দালান কোঠা বানাতে বললেই সে বানায় না৷
    এরপর এই সূরার ১০৯ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে-
    وَدَّ كَثِيرٌ مِنْ أَهْلِ الْكِتَابِ لَوْ يَرُدُّونَكُمْ مِنْ بَعْدِ إِيمَانِكُمْ كُفَّارًا حَسَدًا مِنْ عِنْدِ أَنْفُسِهِمْ مِنْ بَعْدِ مَا تَبَيَّنَ لَهُمُ الْحَقُّ فَاعْفُوا وَاصْفَحُوا حَتَّى يَأْتِيَ اللَّهُ بِأَمْرِهِ إِنَّ اللَّهَ عَلَى كُلِّ شَيْءٍ قَدِيرٌ (109
    “আহলে কিতাবদের কাছে সত্য প্রকাশিত হওয়ার পরও তাদের মধ্যে অনেকে হিংসার কারণে, তোমাদেরকে সত্য প্রত্যাখ্যানকারী হিসাবে পেতে চায়। কিন্তু তোমরা তাদেরকে ক্ষমা কর এবং উপেক্ষা কর, যতক্ষণ না আল্লাহ কোন নির্দেশ দেন ৷ আল্লাহ সব বিষয়ে সর্বশক্তিমান৷” (২:১০৯)
    মদীনায় বসবাসরত ইহুদীরা সবসময় মুসলমানদেরকে ইসলাম থেকে সরিয়ে নেয়ার কিংবা তাদের ঈমান দুর্বল করার চেষ্টা করত। পবিত্র কোরআন এ প্রসঙ্গে মুসলমানদেরকে উদ্দেশ্য করে বলেছে, এটা মনে করার কোন কারণ নেই যে তারা নিজেদেরকে সত্যপন্থী মনে করে বলেই এ কাজ করছে৷ বরং তারা ইসলাম ও কোরআনের সত্যতা উপলদ্ধি করেছে, কিন্তু তাদের হিংসা ও বিদ্বেষের কারণে তারা এ কাজ করছে। সে সময় মুসলমানদের শক্তি কম থাকায় আল্লাহ নির্দেশ দিয়েছিলেন, মুসলমানরা যাতে শত্রুদের প্রবল চাপ উপেক্ষা করে চলে এবং যতক্ষণ না কাফেরদের বিরুদ্ধে জিহাদের নির্দেশ আসে ততক্ষণ আত্ম সংশোধনে নিয়োজিত হয়। এই আয়াত থেকে বোঝা যায়, শত্রুদের বিরুদ্ধে প্রথমেই কঠোর পদক্ষেপ নেয়া ঠিক নয়, বরং ইসলামী নৈতিকতা অনুযায়ী প্রথমে ক্ষমা প্রদর্শন করতে হবে যাতে তারা সঠিক পথে ফিরে আসার সুযোগ পায়৷ এরপরও তারা সঠিক পথে না এলে তাদের মোকাবেলা করতে হবে ৷
    এরপর সূরা বাকারাহ’র ১১০ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে-
    وَأَقِيمُوا الصَّلَاةَ وَآَتُوا الزَّكَاةَ وَمَا تُقَدِّمُوا لِأَنْفُسِكُمْ مِنْ خَيْرٍ تَجِدُوهُ عِنْدَ اللَّهِ إِنَّ اللَّهَ بِمَا تَعْمَلُونَ بَصِيرٌ (110
    “তোমরা নামায প্রতিষ্ঠা কর এবং যাকাত দাও। তোমরা নিজের জন্যে আগে যে সৎকর্ম প্রেরণ করবে, তা আল্লাহর কাছে পাবে। তোমরা যা কিছু কর, নিশ্চয় আল্লাহ তা প্রত্যক্ষ করেন।” (২:১১০)
    দুশমনরা যখন মুসলমানদের ঈমান দুর্বল করতে চায় তখন আল্লাহ মুসলমানদের ঈমান শক্তিশালী করার জন্য তাদেরকে নামাজের মাধ্যমে আল্লাহর সাথে সম্পর্ক বজায় রাখার নির্দেশ দেন৷ একইসাথে যাকাতের মাধ্যমে অন্যান্য মুসলমান বিশেষ করে দুঃস্থদের সাথে সম্পর্ক জোরদারের আহবান জানান। পবিত্র কোরআনে সাধারণত নামাজের নির্দেশের পাশাপাশি যাকাতের কথাও বলা হয়েছে৷ এর কারণ সম্ভবত এটাই যে, মানুষের সেবা করা ছাড়া আল্লাহর এবাদত যথেষ্ট নয়। অপর পক্ষে শুধু মানব সেবার কথাও বলা হয়নি। কারণ আল্লাহর আনুগত্যহীন মানব সেবার ফলে জন্ম নিতে পারে অহঙ্কার, গর্ব ও অন্যকে হেয় করার প্রবণতা। মানুষের একটি সাধারণ আশঙ্কা হলো, অন্যরা বুঝি তার সেবা ও খেদমতের কথা জানাতে পারবে না এবং জানলেও কৃতজ্ঞতা স্বীকার করবে না। তাই মানুষের মধ্যে ভালো কাজের প্রবণতা কমে যায়। এ আয়াতে বলা হয়েছে, তোমরা উদ্বিগ্ন হইও না কারণ তোমরা যা কিছু কর তার সব আল্লাহ দেখতে পান এবং পুরস্কার আল্লাহর কাছে সংরক্ষিত আছে।
    এবারে সূরা বাকারাহ’র ১১১ ও ১১২ নম্বর আয়াত নিয়ে আলোচনা করা যাক৷ এ দুই আয়াত বলা হয়েছে-
    وَقَالُوا لَنْ يَدْخُلَ الْجَنَّةَ إِلَّا مَنْ كَانَ هُودًا أَوْ نَصَارَى تِلْكَ أَمَانِيُّهُمْ قُلْ هَاتُوا بُرْهَانَكُمْ إِنْ كُنْتُمْ صَادِقِينَ (111) بَلَى مَنْ أَسْلَمَ وَجْهَهُ لِلَّهِ وَهُوَ مُحْسِنٌ فَلَهُ أَجْرُهُ عِنْدَ رَبِّهِ وَلَا خَوْفٌ عَلَيْهِمْ وَلَا هُمْ يَحْزَنُونَ (112
    “তারা বলে ইহুদী বা খ্রিস্টান ছাড়া আর কেউ কখনও বেহেশতে প্রবেশ করবে না। এটা তাদের মিথ্যা আশা। বল, যদি তোমরা সত্যবাদী হও তাহলে প্রমাণ পেশ কর। যে ব্যক্তি সৎকর্মপরায়ণ হয়ে আল্লাহর কাছে আত্মসমর্পণ করে তার ফল তার প্রতিপালকের কাছে আছে এবং তাদের কোন ভয় নেই এবং তারা দুঃখিতও হবে না।” (২:১১১-১১২)
    মুসলমানদের মনোবল দুর্বল করার জন্য ইহুদী খ্রিস্টানদের একটি অন্যতম প্রচারণা ছিল যে, তারা বেহেশতকে নিজেদের অধীন বলে দাবি করত এবং বলত, বেহেশতে যেতে চাইলে তোমাদেরকে ইহুদী কিংবা খ্রিস্টান হতে হবে। পবিত্র কোরআন তাদের এ দাবির জবাবে বলেছে, তোমাদের এ ধারণা অলীক স্বপ্ন ছাড়া আর কিছু নয়। এর পেছনে তোমাদের কোন যুক্তি প্রমাণ নেই৷ কারণ পবিত্র জান্নাত কোন গোত্র বা জাতির জন্য সীমাবদ্ধ নয়। বরং বেহেশতে প্রবেশের জন্য রয়েছে সুনির্দিষ্ট মাপকাঠি। যে কেউ ওই মাপকাঠির ভিত্তিতে বেহেশতে যেতে পারে। বেহেশতে প্রবেশের চাবি হলো- আল্লাহর কাছে আত্মসমর্পণ করা। মানুষ আল্লাহর প্রতি নিজেকে সম্পূর্ণ সমর্পণ করে, যদি একমাত্র তারই উদ্দেশ্যে সৎকাজ করে তাহলে সে বেহেশতে যেতে পারে। কেউ যদি আল্লাহর নির্দেশের কিছু অংশ মান্য করে এবং কিছু অংশ বাদ দেয় তাহলে সে আল্লাহর অনুগ্রহ থেকে বঞ্চিত হবে ৷ প্রকৃতপক্ষে গোত্রীয় বিদ্বেষ ও বর্ণ-বিদ্বেষের সঙ্গে আল্লাহর কাছে আত্মসমর্পনের কোন মিল নেই। দু’টি সম্পূর্ণ পরস্পর বিরোধী। ইসলাম যে সত্য ধর্ম-এটা বোঝার পরও যারা তাদের বিদ্বেষের কারণে ঈমান আনেনি, তারা বেহেশতে যেতে পারবে না। এমনকি তারা আহলে কিতাব বা পূর্ববর্তী নবীদের প্রতি আল্লাহর দেয়া কিতাবের অনুসারী হলেও কোন লাভ হবে না। এই আয়াত থেকে বোঝা যায়, যে ব্যক্তি আল্লাহর কাছে পূর্ণ আত্মসমর্পণ করে সে কোন কিছুকেই ভয় পায় না। সবসময় আল্লাহকে নিজের কাছে অনুভব করে এবং তারই আশ্রয়ে নিজেকে খুঁজে পায়৷
    এ কয়েকটি আয়াতের মূল শিক্ষা হচ্ছে-
    এক.মানুষ আল্লাহর অলী-আউলিয়াদের কাছ থেকে অনেক সময় যেসব অবাঞ্চিত আশা বা দাবি করে আসলে তা কুফরী বা অবিশ্বাসের ক্ষেত্র সৃষ্টি করে। কারণ আল্লাহর অলীগণ মানুষের অর্থহীন দাবি পূরণ করেন না। ফলে ওই ব্যক্তির বিশ্বাস দুর্বল হয়ে যায়৷
    দুই. কাফের-মুশরেকদের সাথে দৃঢ় আচরণের আগে আন্তরিক ব্যবহার ও ক্ষমা প্রদর্শন করতে হবে। এই সহৃদয় আচরণ দুর্বলতার নিদর্শন নয় বরং এ হলো তাদেরকে আকর্ষণ ও সংশোধনের উপায় ৷
    তিন. আমাদের কখনই ভাবা ঠিক নয় যে, বেহেশত কোন একটি নির্দিষ্ট জাতি বা গোত্রের জন্য নির্ধারিত। আমরা মুসলমান- কেবল এ বৈশিষ্ট্যের কারণেই যে বেহেশতে যাবো তা নয়। বরং আমাদের বেহেশতে যাবার শর্ত হলো ঈমান ও সৎকাজ।(রেডিও তেহরান)